অনুপ্রবেশকারিদের প্রশ্রয়দাতাদের তালিকা হচ্ছে

পদ্মাপ্রবাহ ডেস্ক /
দলে অনুপ্রবেশকারী ঠেকাতে চায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে মাঠে নামছে দলটি। অনুপ্রবেশকারীদের যারা আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছে তাদেরও চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা জানিয়েছেন, এরই মধ্যে অনুপ্রবেশকারী নেতাকর্মীর প্রশ্রয়দাতাদের চিহ্নিত করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। সম্প্রতি বেশ কিছু দুর্নীতি, অনিয়মসহ নানা অপকর্মের ঘটনায় আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীদের নাম এসেছে। এদের কারণে দল ও সরকার বারবার সমালোচনার মুখে পড়ছে।

আওয়ামী লীগ বলছে, অপকর্মে জড়িতরা অনুপ্রবেশকারী। এদের কারণেই বারবার দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। সে কারণে এদের ঠেকাতে হবে এবং এদের আশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে হবে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুব মহিলা লীগের নরসিংদীর নেত্রী পাপিয়া অর্থনৈতিক অনিয়মসহ বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার হন। তাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়।

এরপর করোনা মহামারির মধ্যে দুর্নীতি অনিয়মের সঙ্গে যুক্ত থাকায় আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপকমিটির সহসম্পাদক দাবিদার রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ, মহিলা বিষয়ক উপকমিটির সাবেক সহসম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিস্ট্রার শারমিন জাহান গ্রেপ্তার হন। তাদের কারণে সমালোচনার মধ্যে পড়তে হয় আওয়ামী লীগকে।

সম্প্রতি এক শিশু অপহরণ ও পাচারের সঙ্গে জড়িত লোপা তালুকদার নামে এক নারী গ্রেপ্তার হয়েছেন। নিজেকে আওয়ামী লীগ পরিবারের একজন বলে দাবি করে আসা এই নারীর সাংবাদিক পরিচয়ও আছে। আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে তার সম্পর্ক ও তাদের সঙ্গে তোলা ছরি সামাজিক মধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

সম্প্রতি দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের ওপর হামলার অভিযোগে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগের স্থানীয় দুই শীর্ষ নেতাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ ছাড়া ফরিদপুর, কুষ্টিয়া, ময়মনসিংহসহ কয়েকটি স্থানে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুব লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের অনেক নেতাকে বহিষ্কার ও কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ বলেন, যারা নানাভাবে আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করছে, তারা আওয়ামী লীগ করার জন্য আসছে না। ক্ষমতার সুযোগ নিয়ে হালুয়া রুটি খাওয়ার জন্য আসছে। আর এরা দলের এক শ্রেণীর নেতার ছত্র ছায়ায় থাকে। ওই নেতার অবস্থান যখন দলে নড়বড়ে হয়ে পড়বে তখন আর অনুপ্রবেশকারী বলেও কিছু থাকবে না।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, অনুপ্রবেশকারী ও তাদের প্রশ্রয়দাতাদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে। চিহ্নিত করে প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে।

  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    9
    Shares