স্বামীর গাড়ী থেকে ঝাঁপ দিয়ে স্ত্রীর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক/
রাজশাহীর বাঘায় স্বামীর চলন্ত প্রাইভেটকার থেকে ঝাঁপ দিয়ে মারা গেছে স্ত্রী। শনিবার (৩ অক্টোবর) সকালে বাঘার মীরগঞ্জ এলাকায় শ্বশুর বাড়ী থেকে স্ত্রী জুলিয়াকে ঢাকা নেয়ার পথে সে প্রাইভেটকার থেকে ঝাঁপ দিয়ে আহত হয়। পরে রামেক হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান। ঘটনার পর স্বামী মোহাম্মদ আলীকে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, আজ থেকে প্রায় ৬ বছর পূর্বে উপজেলার মীরগঞ্জ গ্রামের মোশারফ হোসেনের মেয়ে জুলিয়া খাতুন (২০) এর বিয়ে দেয়া হয় রাজবাড়ী জেলার শহিদুল মণ্ডলের ছেলে মোহাম্মদ আলী (২৭) এর সাথে। বর্তমানে তাদের সংসারে ৫ বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। শহিদুল গার্মেন্টস ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত থাকায় বর্তমানে ঢাকার একটি ভাড়া বাসায় থাকেন বলে জানা যায়।

জুলিয়ার মামা’ মকুল হোসেন জানান, সম্প্রতি মেয়ে ও জামাই এর মধ্যে সম্পর্ক ভালো যাচ্ছিল না। এ কারণে গত একমাস ধরে জুলিয়া তার মা-বাবার বাড়ীতে অবস্থান করছিল এবং ঢাকায় যেতে চাচ্ছিল না। হঠাৎ শুক্রবার (৩ অক্টোবর) জামাই তার প্রাইভেট কার নিয়ে শ্বশুরবাড়ী মীরগঞ্জে বেড়াতে আসে। এরপর শনিবার সকাল ১০ টার সময় বাঘা মাজার শরিফ দেখতে আসার কথা বলে স্ত্রী-পুত্রকে প্রাইভেটকারে নিয়ে বাড়ী থেকে বের হয়। অত:পর মাজারে না গিয়ে বাঘা বাজার অতিক্রম করে জামাই ঢাকার উদ্দেশ্যে গাড়ী চালাতে থাকলে জুলিয়া বিষয়টি বুঝতে পেরে গাড়ির দরজা খুলে মাটিতে ঝাঁপ দেয়। এ ঘটনায় সে গুরুত্বর আহত হয়।

এ সময় জুলিয়ার স্বামীসহ স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে আসে। তখন কর্তব্যরত চিকিৎসক জুলিয়াকে আহত অবস্থায় রামেক হাসপাতালে রেফার করেন। ইতোমধ্যে তাদের পরিবারের লোকজন খবর পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চলে আসে। এরপর একটি মাইক্রো যোগে জুলিয়াকে রামেক হাসপাতালে নিলে পথিমধ্যে সে মারা যায়।

বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে স্বামী মোহাম্মদ আলীকে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। এ বিষয়ে বিকেল পর্যন্ত কোন লিখিত অভিযোগ আসেনি। এলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে

  • 8
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    8
    Shares